আঙুলের ঘামে চার্জ হবে স্মার্টফোন

ধরুন আপ‌নার হাত ঘামাচ্ছে, আর সেই ঘাম থেকে চার্জ হচ্ছে আপনার মুঠোফোন। বিষয়টা অবাক করার ম‌তো, তাই না? হ্যাঁ, ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার বিজ্ঞানীরা এমনই এক যুগান্তকারী প্রযুক্তি আবিষ্কার করলেন।

ক্যালরি ‘বার্ন’ করলে ঘাম হয়। আর সেই ঘামের মতো পদার্থ থেকে শক্তি উৎপাদন করা যায়। এই চিন্তাশক্তির দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েই এই গবেষণা করেন বিজ্ঞানীরা।

বিজ্ঞানীদের দাবি, এর মাধ্যমে এবার থেকে মানুষের ঘাম থেকে উৎপন্ন শক্তি দ্বারাই চার্জ করা যাবে স্মার্টফোন। তারা এরই মধ্যে এক ধরনের বায়োব্যাটারি তৈরি করেছে। সেই ব্যাটারি স্টিকারের মতো লেগে থাকবে মানুষের আঙুলে। হাতের ঘাম থেকে উৎপন্ন হবে বিদ্যুৎ। সেই বিদ্যুতে চার্জ হবে স্মার্টফোন।

এই পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে কসরত করে ঘাম ঝরাতে হবে না বলে দাবি গবেষকদের। ইলেক্ট্রিক কন্ডাক্টর এবং কার্বন ফোম দিয়ে তৈরি করা হয়েছে যন্ত্রটি। এই স্ট্রিপে এনজাইম বা এক ধরনের প্রোটিন, যা ল্যাকটেটকে পাইরুভিক অ্যাসিড-এ রূপান্তর করে। এর ফলে দুটি ইলেকট্রন উন্মুক্ত হয়। ইলেকট্রন চার্জ, যা থেকে বৈদ্যুতিক শক্তি উৎপন্ন হয়। ঘামে যত বেশি ল্যাকটেট থাকে, তত বেশি বৈদ্যুতিক শক্তি উৎপন্ন হয়।
ল্যাকটেট থেকে পাওয়া বিদ্যুৎ দিয়ে শুধু মোবাইল চার্জ নয়, বরং ছোট ছোট আরও অনেক ইলেকট্রনিক যন্ত্রও চালানো যাবে। যেমন হার্টরেট মনিটর, স্মার্টফোন ইত্যাদি।

জানা গেছে, সেন্সরটি খুব ছোট হলেও তা দশ ঘণ্টায় চার হাজার মিলিজুল শক্তি উৎপন্ন করা সম্ভব। একটি ইলেক্ট্রনিক ঘড়ি তাতে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত চালানো যাবে।