দল হারলেও চার উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়ে দেখেনিন যত টাকা পুরস্কার পেল মিরাজ

বিপিএলের উদ্বোধনী দিনেই চট্টগ্রাম চেলেঞ্জার্স ,নিজেদের প্রথম ম্যাচে হেরেছে ফরচুন বরিশালের কাছে। শেষ মুহূর্তে জয়ের কাছে গিয়েও হার দেখতে, হয়েছে বন্দরনগরীর দলটিকে। দল হারলেও ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন মিরাজ।

প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং করতে নামা চট্টগ্রাম, চেলেঞ্জার্স প্রথম দিকে মোটেও সুবিধা করতে পারেনি ব্যাট হাতে একের পর এক উইকেট বিলাতে থাকা, চট্টগ্রামের হয়ে হাল ধরার চেষ্টা করেছিলেন মিরাজ। ২০ বল মোকাবেলায় ৯ রান করলেও স্কোর বড়, করতে পারেননি তিনি।

ব্যাট হাতে সুবিধা করতে না পারলেও মিরপুরের, উইকেট বল হাতে স্পিন ঘূর্ণিতে কাবু করেছেন প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের। ১২৬ রানের লক্ষ্যে,

খেলতে নামা ফরচুন বরিশালের ব্যাটিং অর্ডারে সর্বপ্রথম আঘাত হানেন মিরাজ। ওপেনার নাজমুল, হোসেন শান্তকে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে দেন মিরাজ। ৬ বল মোকাবেলায় মাত্র ১ রান করেছিলেন শান্ত।

নিজের দ্বিতীয় শিকারে মিরাজ পরিণত করেন, সাকিব আল হাসানকে। দেখেশুনে ব্যাট চালিয়ে সাকিব যখন ক্রিজে থিতু হয়ে বড় শট খেলার চেষ্টা,

চালিয়ে যাচ্ছিলেন তখন সাকিবকে দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন মিরাজ। ১৬ বল মোকাবেলায় ১৩ করা, সাকিবকে দুর্দান্ত ডেলিভারিতে বোল্ড আউট করে সাজঘরে ফেরত পাঠান মিরাজ।

বরিশালের হয়ে ব্যাট হাতে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে, দিচ্ছিলেন সৈকত আলি। তবে এই ব্যাটসম্যানকেও সাজঘরে ফেরত পাঠাতে সক্ষম হন মিরাজ।

৩৫ বল মোকাবেলায়, ১টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে ৩৯ রান করা সৈকতকে উইল জ্যাকসের ক্যাচে, পরিণত করে করে সাজঘরে ফেরত পাঠান মিরাজ।

নিজের শেষ শিকারে মিরাজ তুলে নেন ইরফান, শুক্কুরকে। ১৩ বল মোকাবেলায় ১৬ রান করা শুক্কুরকে এলবিডব্লিউয়ের শিকারে পরিনত করেন তিনি।

এই ইনিংসে ৪ ওভার বল করে মাত্র ১৬ রানের, বিনিময়ে মিরাজ দখলে নিয়েছেন ৪টি উইকেট ফলে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার দেয়া হয়েছে, তাকে।

ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে মিরাজের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ৫০০ মার্কিন ডলার। বাংলাদেশী, মুদ্রায় যা প্রায় ৪৩ হাজার টাকা।